ছয়বছরের মধ্যে পঞ্চম ডার্বি হতে যাচ্ছে স্পেনের বাইরে

0
19

২০১৪ থেকে মাদ্রিদ ডার্বি একটি ইন্টারন্যাশনাল ডার্বিতে রূপ নিয়েছে। রবিবার রাতে (আজ রাত) স্প্যানিশ সুপার কাপের ফাইনাল (সুপারডার্বি) গত ছয়বছরের মধ্যে পঞ্চম ডার্বি হতে যাচ্ছে স্পেনের বাইরে।

মাদ্রিদডার্বি বিশ্বব্যাপী চরম উত্তেজনাপূর্ণ একটি ম্যাচে পরিণত হয়েছে এই সময়ে।

আজরাতে দুই দল স্পেনের বাহিরে তাদের পঞ্চম ম্যাচ খেলবে গত ছয় বছরে। এইসব ম্যাচগুলাতে সমস্ত টিকেট বিক্রি হয়েছিলো।

এর শুরুটা হয় ২০১৪ সালে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনাল দিয়ে। সেই রাত ছিল রিয়াল মাদ্রিদের জন্য একটি মধুর রাত এবং এটিএমের জন্য তিক্ত। ৯৩তম মিনিটে সার্জিও রামোসের গোল ও অতিরিক্ত সময়ে আরো তিনটি গোলে অ্যাটলেটিকোর খেলোয়াড়র ও দর্শকদের মন ভেঙে গিয়েছিল সেই রাতে। সেই ম্যাচটিতে লিসবনের এস্তাদিও দা লুজটিত স্টেডিয়ামে ৬১,০০০ দর্শক উপস্থিত ছিল। যা স্টেডিয়ামের সর্বোচ্চ ধারণক্ষমতা।

দু’বছর পরে আবারো একই প্রতিযোগিতায় দুইদলের বার দেখা স্পেনের বাইরে। এবারও অ্যাটলেটিকোর জন্য একই হৃদয়ভাঙা এবং রিয়েল মাদ্রিদের একই উচ্ছ্বাস কিন্তু ভিন্ন স্টেডিয়ামে। কিন্তু এবার অতিরিক্ত সময় পেরিয়ে পেনাল্টি শুটআউটে গড়ায় ম্যাচ। কারণ দুইদলই এই সময়ে গোল দিতে ব্যর্থ। ‘জুয়ানফ্রান’ পেনাল্টির শুটিং-আউটে মিস করে আটলিটিকোর ভাগ্যের তরী ডুবিয়ে দিয়ে মাদ্রিদকে খুশির জোয়ারে ভাসায় সেই রাতে। সেবার ‘সান সিরোতে’ চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনাল (২০১৬) ৮১,০০০ ফুটবল অনুরাগীর সামনে খেলা হয়েছিল।

এরপর উভয় দল ২০১৮ সালে টালিনের লিলিকুলা স্টেডিয়ামে ইউরোপীয়ান সুপার কাপে ১২,৫০০ দর্শকের সামনে মিলিত হয়েছিল আরো একবার। এটিই ছিল একমাত্র মাদ্রিদ ডার্বি যেখানে নিজ নিজ ডাগঅাউটে জিদান ও সিমিওনের কেউ ছিল না। এবারও খেলা অতিরিক্ত সময়ে গড়ায়। ৯০ মিনিটে ফলাফল নির্ধারণ যেন হয়ই না এই দুই দলের ম্যাচে। অ্যাটলেটিকো অতিরিক্ত সময়ে দুটি গোল করে জয় লাভ করে এই দেখায়।

সর্বশেষ ডার্বিটি ‘নের জার্সির’ মেটলাইফে ৮০,০০০ দর্শকের সামনে খেলেছিল জিদান দ্বিতীয় দফায় মাদ্রিদের দ্বায়িত্ব নেয়ার পর। ম্যাচটি অ্যাটলেটিকো ৩-৭ গোলে জিতে নেয়। যদিও ম্যাচটি শুধুই একটা ক্লাব ফ্রেন্ডলি ম্যাচ ছিল।

আজ রাত স্পেনে বাইরে আরেকটি সুপারডার্বি। আরও একটি উত্তেজনাপূর্ণ ম্যাচ হতে যাচ্ছে গ্যারান্টি।