১৭ কোটি মানুষের জামাল ভুঁইয়া! আমার জামাল ভুঁইয়া! 

ক’দিন আগে বুফন তার এক লেখায় অবলীলায় স্বীকার করে গেছেন, জীবন নিয়ে তার ডিপ্রেশনের কথা! বলেছেন, বিশ্বকাপ হাতের মুঠোয় রেখেও নিজের হতাশার কথা! না, কোন কিছু না পাওয়ার হতাশা নয়; হতাশা ফুটবলের পিছনে ছুটতে ছুটতে পৃথিবীর বাকী অংশ থেকে ছিটকে পড়ার, হতাশা নিয়মের বেড়াজালে আঁটকে নিজের মনের নানান আবদার না মিটাতে পারার হতাশা, নিয়মের মাঝে থাকতে থাকতে নিজেকে রোবোট অনুভূত হওয়ার হতাশা! বুফন বলেছিলেন – তুমি যদি সবকিছু ভুলে কেবলই ফুটবল নিয়ে বাঁচা শুরু করো তবে একটা সময় তোমার সত্তা নির্জীব হয়ে যাবে, প্রাণশক্তি হারিয়ে ফেলবে, যা তোমাকে ধীরে ধীরে হতাশাগ্রস্ত করে তুলবে।

সত্যিই তো তাই! জীবনে টাকা কিংবা যশ খ্যাতি কখনোই আপনায় সত্যিকারের সুখ এনে দিতে পারেনা! বরং আপনি যদি আপনার ভিতরটাকে শুনেন, নিজের মনের আবদার মিটান, তা বোধহয় আপনায় অনেক না পাওয়া ভুলিয়ে স্বর্গীয় সুখানুভূতি দিতে সক্ষম!

আর এখানেই আমার জামাল ভুঁইয়ার গল্পটা শুরু!

আজ যখন আনন্দের ফোয়ারায় আবেগমাখা জামালের কন্ঠে শুনি – “ইটস আ স্পেশাল ফিলিং টু বি আ ক্যাপ্টেন অফ সেভেন্টিন কোর মানুষ, দ্যাটস আনবিলিভেবল!” ; তখন যেনো আমার গর্বের শেষ নাই!

ইউরোপের স্বাচ্ছন্দ্যময় জীবন ছেড়েছেন, ইউরোপিয়ান ক্লাব ছেড়েছেন, বাবা মা’য়ের বারণ অমান্য করেছেন; এসেছেন এই ধুলোবালির শহরে, চলছেন যানযট আর দুষিত বাতাস আর পানির শহরে, বল নিয়ে দৌড়াচ্ছেন কাঁদামাখা মরা ঘাসে! অনেক টাকা নেই, অনেক স্বাচ্ছন্দ্য নেই, অনেক ফেম নেই, আছে দেশ আর ১৭ কোটি মানুষ! আর জামালের আছে দেশের প্রতি টান, আছে ১৭ কোটি মানুষের প্রতি ভালোবাসা!

“ইউ হ্যাভ টু ফলো ইওর হার্ট, ইউ হ্যাভ টু লিসেন টু ইওর হার্ট” – আজ জামাল যদি নিজের মনকে না শুনে ইউরোপেই থেকে যেতেন, তবে হয়তো জামালের অনেক টাকা কিংবা স্বাচ্ছন্দ্য কিংবা ফেম পেতেন কিন্ত জামালের সত্ত্বা মরে যেতো, নির্জীব হয়ে যেতো!

১৭ কোটি’র প্রতি জামালের এই টান যেনো দেশের প্রত্যেককে বার্তা দেয়; প্রত্যেককে শেখায় কিভাবে দেশকে ভালোবাসা যায়, কিভাবে দেশের প্রতি দায়িত্ব পালন করতে হয়! জামাল তো বাংলাদেশে বেড়ে উঠেনি, জামাল কে তো এই দেশ খাওয়ায়নি কিংবা পড়ায়নি! তবুও কেবল রক্তের টানে ফিরে এসেছেন, সবটুকু ছেড়ে, দেশের প্রতি ভালোবাসায়! আজ যখন জামাল ১৭ কোটি মানুষের একজন হওয়ায় অশ্রুসিক্ত চোখে গর্ব করে তখন যেনো সাধারণ থেকে শুরু করে কৃষক, ব্যাবসায়ী, চাকরিজীবী, রাজনীতিবিদ সহ সবাইকে চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দেয় কিভাবে ভালোবাসতে হয় আমার দেশকে, কিভাবে নিজের জায়গায় থেকে দেশের জন্যে কিংবা ১৭ কোটি মানুষের জন্যে কিছু করে যেতে হয়!

তোমরা রেবেকা শফি কিংবা ইমরান কে নিয়ে গর্ব করো, কিন্তু সব ছেড়ে তোমাদের জন্যে তোমাদের মাঝে পড়ে থাকা জামাল কে ভুলে যাও!

“আই’ম নট আ রোবোট! কস্ট পাই! বাবা মা কে মিস করি, ফ্রেন্ড কে মিস করি! কিন্তু এই দেশ আর ১৭ কোটি মানুষের দায়িত্ব আমায় সব ভুলিয়ে দেয়!”

একদিকে ভাংগাচুড়া ফুটবল কাঠামো আর দুর্নীতিগ্রস্থ বাফুফে, আর অন্যদিকে আমার গর্বের জায়গায় একজন জামাল ভুইয়া! ১৭ কোটি মানুষের জামাল ভুঁইয়া! আমার জামাল ভুঁইয়া!