স্টিভেন স্মিথ! শত্রুর চোখেও মুগ্ধতা ছড়ানো নায়ক!

দীর্ঘ এক বছর পর নিষেধাজ্ঞা থেকে ফিরে প্রথমবারের মতো টেস্ট খেলতে নেমেছিলেন। তাও আবার ঐতিহ্যবাহী এ্যাশেজে, প্রতিযোগিতাটা টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপ। ওয়ার্নার থেকে শুরু করে অজিদের পুরো ব্যাটিং লাইন-আপ যখন দিশেহারা, সেখান থেকেই একপ্রান্ত আগলে রেখে দলের রানা চাকা সচল রেখেছেন। নবম উইকেটে বোলার পিটার সিডল কে নিয়ে করেছেন মূল্যবান ৮৮ রান। সবমিলিয়ে চাপের মুখে প্রথম ইনিংসে তুলে নিয়েছিলেন ক্যারিয়ারের ২৪ তম সেঞ্চুরি।
২১৯ বলে ১৪৪, ইনিংস সাজিয়েছিলেন ১৬ চার ২ ছয়ে। ৬৫.৭৫ স্ট্রাইক রেট।

তবে থেমে থাকেননি এখানেই, সেঞ্চুরি হাকিয়েছিলেন পরের ইনিংসেও। যদিও একই ইনিংসে সেঞ্চুরির দেখা পেয়েছিলেন ম্যাথু ওয়েডও। তবে অজিদের শুরুর ভিতটা তিনিই গড়ে দিয়েছিলেন। ১৪ চারের সাহায্যে ২০৭ বলে ১৪২, ৬৮.৬০ স্ট্রাইক রেট।

টেস্টের প্রথম দিন থেকেই ব্রিটিশ দর্শকদের ক্রমাগত দুয়োধ্বনি, তিরস্কার। অথচ দ্বিতীয় ইনিংসে সেঞ্চুরি হাকিয়ে মাঠ ছাড়ার সময় পুরো স্টেডিয়ামে একযোগে করতালি। শত্রুর চোখেও যখন মুগ্ধতার রেশ!

বিখ্যাত এ্যাশেজের শেষ ১০ ইনিংসে সেঞ্চুরি ৫ টা, ফিফটি ২ টা, ডাবল সেঞ্চুরি আছে ১ টা। ১৩৯.৫ এভারেজে রান করেছেন ১১১৬। আবার এ্যাশেজের ইতিহাসে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ সেঞ্চুরি। ঐদিকে টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসে দুই ইনিংসেই সেঞ্চুরি পেয়েছেন ৮৫ জন, কিন্তু ১৪০+ রান পেয়েছেন মাত্র চারজন, যার ৪র্থ সংযোজন এই অজি ব্যাটসম্যান। দুই ইনিংস মিলিয়ে নাথান লায়নের ৯ উইকেট, কামিন্সের ৬ উইকেট, কিংবা দ্বিতীয় ইনিংসে ম্যাথু ওয়েডের সেঞ্চুরি। সব একপাশে রাখলেও অজিদের টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপের শুরুতেই উড়ার মূল কান্ডারী এই ঠান্ডা মাথার খুনে ব্যাটসম্যান।

২০১৬ সাল থেকে এ পর্যন্ত ২৭ ম্যাচ খেলে রান করেছেন ২৮৯৫৷ সেঞ্চুরি হাকিয়েছেন ১২ টা, অর্ধশতক ১০ টা। তবে এভারেজের দিক দিয়ে ছাপিয়ে গিয়েছেন বিরাট কোহলি, জো রুট, কেন উইলিয়ামসনেদের মতোন বাঘা বাঘা ক্রিকেটারদের৷ ৭০.৬০ এভারেজ নিয়ে এই ৩ বছরে সবচেয়ে বেশী ধারাবাহিক এই অজি ব্যাটসম্যানই। ৬৫.৮০ এভারেজ নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে বিরাট কোহলি, বাকিরা আরো ধরাছোঁয়ার বাইরে।

প্রথমবারের মতো শুরু হওয়া টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপে কাল শুরু হচ্ছে দ্বিতীয় ম্যাচ। অভিষেকের অপেক্ষায় আছেন বিশ্বকাপ মাতানো জোফরা আর্চার। আর লড়াইয়ে নামার আগে আরো একবার ব্যাটে শান দিচ্ছেন বর্তমান সময়ের সেরা টেস্ট ব্যাটসম্যান স্টিভেন স্মিথ!