সূর্যোদয়ের দেশে ফুটবলের আগমনী সূর্যসন্তানেরাঃ (পর্ব দুই)

তাকেফুসা কুবোকে নিয়ে পড়ে আপনারা হয়তো আফসোস করতে পারেন, আর বার্সেলোনিস্তারা হয়তো চোখের কোনায় পানিও আনতে পারেন৷ যদি এমনটি করে থাকেন, তাহলে আপনাদের জন্যে সুসংবাদ৷ আজ আপনাদের এক এমন খেলোয়াড় সম্বন্ধে জানাবো যাকে আপনারা অনেকেই হয়তো চিনবেন না৷ আজকের ফিচারে আপনারা জানবেন হিরোকি আবে সম্পর্কে। পরবর্তীতে আরো ৩ জন উদীয়মান জাপানিজ খেলোয়াড় সম্পর্কে জানবেন৷

তাকেফুসা কুবোকে নিয়ে পড়তে ক্লিক করুনঃ  সূর্যোদয়ের দেশে ফুটবলের আগমনী সূর্যসন্তানেরা

হিরোকি আবে | বার্সেলোনা বি
“কুবো সাগা” তে আপনারা যারা চোখের জল ভাসিয়েছিলেন, তারা রুমাল বের করে চোখ দুটো মুছে নিন৷ কেননা হিরোকে আবেও কিন্তু একই ধরণের এক ট্যালেন্ট! কাশিমা এন্টলার্স থেকে বার্সেলোনা আবেকে এই সামারেই কিনে নেয় এবং সৌভাগ্যক্রমে এবার ফিফা থেকে আর কোনো ঝামেলা পোহাতে হয়নি জোসেপ মারিয়া বার্তামেয়োকে, কেননা আবের বয়স ২০ বছর৷

আপনি হয়তো খেয়াল করবেন, বিগত কয়েক সিজন ধরে কাতালান কিছু ক্লাব জাপানিজ ইয়াং ট্যালেন্টগুলোর দিকে হুমড়ি খেয়ে পড়ছে৷ অবশ্য এটিকে অতো বড় কোনো আশ্চর্যের ব্যাপার হিসেবে দেখার কোনো প্রয়োজন নেই৷ উল্লেখ্য যে, কাতালান ক্লাবগুলোর ৩ টি একাডেমি রয়েছে জাপানে এবং ক্লাবগুলোর সাথে জে লীগের অফিসিয়াল এবং আন-অফিসিয়াল পার্টনারশিপ রয়েছে৷

আবেকে বিশেষায়িত করতে দুটি শব্দের প্রয়োজনঃ আত্মবিশ্বাসী এবং অনির্দেশ্য৷ তাঁর আছে দ্রুতগতি এবং অসাধারণ উপস্থিত বুদ্ধি৷ সে তাঁর গতি দিয়ে মাঠের ছোট জায়গা থেকে দলের জন্যে অনেক বড় বড় মোমেন্টাম তৈরি করতে পারে৷ যখনি কোনো ডিফেন্ডার মনে করে যে তারা আবেকে আটকাতে সক্ষম হয়েছে তখনি আবে তাঁর উপস্থিত বুদ্ধি এবং শৈলী দিয়ে তাদের পরাস্ত করে৷ তাঁর স্কিল প্রতিনিয়ত তাঁকে নিয়ে যাচ্ছে এক নতুন উচ্চতায়৷ তাঁর ক্ষীণ সম্ভাবনাকে প্রবল সম্ভাবনায় পরিনত করার অনন্য দক্ষতায় বার্সেলোনার নজর কেড়েছে৷

Image result for hiroki abe

স্যাম রবসন বলেছেন, “কুবোর কথা বাদ দিন৷ আবে হয়তো বিগত পাঁচ বছরের প্রতিভাশালী সেরা তরুণ জাপানিজ খেলোয়াড়!” বার্তামেয়ো ইতিমধ্যেই বলেছেন যে আবে হলো এমন একজন খেলোয়াড় যাকে সম্পূর্ণ “স্পোর্টিং রিজনে” দলে নেয়া হয়েছে এবং বার্তামেয়োর বিশ্বাস হিরোকি আবে বার্সেলোনা দলের একজন গুরুত্বপূর্ণ অংশ হিসেবে নিজেকে প্রমাণ করে নিবেন৷

বর্তমানে হিরোকি আবে বার্সেলোনা বি দলের হয়ে খেলছেন৷ জাপানিজ লীগে সে নিজেকে প্রমাণ করার চেয়ে বেশি কিছু করে ফেলেছে৷ গত সিজনে জাপানিজ সিনিয়র লীগে কাশিমা এন্টলার্সের হয়ে ৪৯ টি ম্যাচ খেলে, টুর্নামেন্টের “সেরা উদীয়মান খেলোয়াড়” নির্বাচিত হয়েছে৷ এরই মধ্যে সে এএফসি চ্যাম্পিয়নস লীগ জয় করেছে, যে টুর্নামেন্টে সে তাঁর চমকপ্রদ পারফরম্যান্স দিয়ে সকলের নজর কেড়ে নিয়েছে।

তাকেফুসা কুবোকে নিয়ে পড়তে ক্লিক করুনঃ  সূর্যোদয়ের দেশে ফুটবলের আগমনী সূর্যসন্তানেরা