সালতামামি-২০২০ : বাংলাদেশ ফুটবল

0
15

২০২০ সালটি হাতাশার মধ্যে দিয়েই কাটিয়েছে বাংলাদেশের ফুটবল ভক্তরা। কোভিড-১৯ মহামারির কারণে প্রয় সবগুলো ফুটবল ইভেন্ট স্থগিত কিংবা বাতিল হয়ে গিয়েছিল।

এই সময় মাঠে খেলার খুব একটা সুযোগ পায়নি বাংলাদেশের ফুটবলাররা। যে কারণে ঘরে বসেই অলস সময় পার করেছে তারা। অবশ্য বছরের শেষভাগে ফেডারেশন কাপ দিয়ে শুরু হয় দেশের ফুটবল মৌসুম। শেষ ও হযেছে সফলভাবে।

প্রথমবারের মত টুর্নামেন্টের শিরোপা ঘরে তুলেছে বসুন্ধরা কিংস। ফাইনালে পুরান ঢাকার ঐতিহ্যবাহী ক্লাব রহমতগঞ্জ মুসলিম এন্ড ফ্রেন্ডস সোসাইটিকে ২-১ গোলে হারিয়ে শিরোপা নিশ্চিত করে বসুন্ধরা কিংস।

দেশের শীর্ষ ফুটবল ইভেন্ট পেশাদার ফুটবল লিগ অবশ্য সময় মতই শুরু হয়েছিল। কিন্তু দেশ ব্যপি করোনার সংক্রমন ছড়িয়ে পড়লে অংশগ্রহনকারী ক্লাবগুলোর সঙ্গে আপোষরফা মুলক বৈঠকের মাধ্যমে সেটি বাতিল ঘোষণা করেন বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) সিনিয়র সহ-সভাপতি আব্দুস সালাম মুর্শেদীর নেতৃত্বাধীন পেশাদার লিগ কমিটি। ২০০৭ সালে চালু হবার পর করোনার কারণে প্রথমবারের মত টুর্নামেন্টটি বাতিল করা হয়েছে।

তবে সেই দিক থেকে ভাগ্যবান মহিলা ফুটবলাররা। কারণ দীর্ঘদিন পর তারা মহিলা লিগ খেলার সুযোগ লাভ করেছে। করোনার কারণে লিগের প্রথম লেগের খেলা স্থগিত করা হলেও বছরের শেষভাগে এসে সফলতার সঙ্গে সম্পন্ন হয়েছে লিগটি। উদ্বোধনী আসরে শিরোপা জয়ের মাধ্যমে ইতিহাসে নাম লিখিয়ে নিয়েছে বসুন্ধরা কিংস।

করোনা মহামারির সময়ও নেপালকে নিয়ে ‘মুজিব বর্ষ’ ফিফা আন্তর্জাতিক দুই ম্যাচের ফুটবল সিরিজ আয়োজনের জন্য ধন্যবাদ পাবার দাবীদার বাফুফে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শতবার্ষিকী উপলক্ষে এই টুর্নামেন্টটির উদ্যোগ নিয়েছিলেন ফুটবল ফেডারেশনের সভাপতি কাজী মোহাম্মদ সালাউদ্দিন।

সিরিজের প্রথম ম্যাচে নেপালকে ২-০ গোলে পরাজিত করেছির জামাল ভুঁইয়ার নেতৃত্বাধীন বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দল। দ্বিতীয় ম্যাচটি শেষ হয় গোলশুন্য ড্র দিয়ে। ফলে সিরিজটি নিশ্চিত করে স্বাগতিক বাংলাদেশ।

এ বছর দোহায় অনুষ্ঠিত হয়েছে ২০২২ বিশ্বকাপ ও ২০২৩ এশিয়ান কাপের যৌথ বাছাইপর্ব। তবে স্বাগতিক কাতারের বিপক্ষে দাঁড়াতেই পারেনি জেমি ডে’র শিষ্যরা। ০-৫ গোলের বিশাল ব্যবধানে পরাজয় বরণ করেছে সফরকারী বাংলাদেশ। প্রতিকুলতার মধ্যেই এই বছর নতুন আশা নিয়ে ফুটবল মৌসুম শুরু করেছে বাংলাদেশ।

এই বছর অবশ্য ফুটবলের চেয়ে বেশী আলোচনায় ছিল বাফুফের নির্বাচন। শুরুতে বহুল আলোচিত ব্যবসায়ী ও ফুটবল সংগঠক তরফদার রুহুল আমিন সভাপতি পদে নির্বাচনের ঘোষণা দিলেও পরে ব্যক্তিগত কারণ দেখিয়ে সরে দাঁড়ান নির্বাচন থেকে।
এপ্রিল মাসে অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল বাফুফে ন্র্ঠিঢ়নের। কিন্তু করোনার কারনে নির্ধারিত নির্বাচনটি পিছিয়ে সম্পন্ন হয়েছে অক্টোবরে। যেখানে কিংবদন্তী ফুটবলার কাজী সালাউদ্দিন চতুর্থবারের এু সভপাতি নির্বাচিত হন। সিনিয়র সহ-সভাপতি পদে পুন:নির্বাচিত হয়েছেন সালম মুর্শেদী।

নির্বাচনে অংশ নিয়ে সবাইকে বিষ্মিত করেছেন বসুন্ধরা কিংসের সভাপতি ইমরুল হাসান। ইতোমধ্যে দ্রুততম সময়ে সংগঠক হিসেবে নিজেকে প্রমান করা হাসান প্রথমবারের মত নির্বাচনে অংশ নিয়েই ফেডারেশনের সহ-সভাপতি নির্বাচিত হযেছেন।
এই বছর ফুটবল অঙ্গনের সবচেয়ে দু:খজনক ঘটনা হচ্ছে বাফুফের সাবেক সহ সভাপতি ও সাবেক তারকা ফুটবলার বাদল রায়ের পরপারে পাড়ি জমানো। অবশ্য দীর্ঘ দিন ধরেরই নানামুখি রোগে আক্রান্ত ছিলেন তিনি। শেষ পর্যন্ত লিভার ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেন বাদল রায়।