সমর্থকদের গ্যালারীতে দেখতে চান জেমি ডে

বুধবার থেকে শুরু হচ্ছে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপের ষষ্ঠ আসর। উদ্বোধনী ম্যাচে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ফিলিস্তিনের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ।

অনূর্ধ্ব-২৩ এবং জাতীয় দলের কিছু ফুটবলারের সমন্বয়ে গঠিত দল নিয়ে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপে অংশ নিতে বাংলাদেশে এসেছে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ফিলিস্তিন। তবে লক্ষ্য শিরোপা ধরে রাখা। জানিয়েছেন দলের ম্যানেজার জাবের জারিন। কোচ অবশ্য ভাঙা ইংরেজিতে শুভকামনা জানিয়েছেন সব দলকে।

বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে বিকাল ৫টায় শুরু হবে ম্যাচটি।  ইনজুরির কারণে আনুষ্ঠানিকভাবে দল থেকে বাদ পড়েছেন টুটুল হোসেন বাদশা। বাংলাদেশ কোচ জেমি ডে বলেন,

“জীবন ও বাদশা অসুস্থতার কারণে টুর্নামেন্টে খেলতে পারছে না কিন্তু এটা সেরা একাদশে থাকা নতুনদের জন্য সুযোগ। এ টুর্নামেন্টে যতদূর সম্ভব যাওয়ার জন্য আমরা উন্মুখ হয়ে আছি। এটা কঠিন একটা টুর্নামেন্ট কিন্তু ছেলেরা আত্মবিশ্বাসী। আগামীকালের ম্যাচ নিয়ে আমরা খুবই ইতিবাচক।”

ম্যাচে রক্ষণাত্বক কৌশলে নামবে বাংলাদেশ দল। নিশ্চিত করেছেন কোচ জেমি ডে। ৪-১-৪-১ ফরমেশনে খেলবে স্বাগতিক শিবির। তিনি আরও বলেন,

“আমরা আমাদের সর্বোচ্চটুকু দিব। আশা করি গ্রুপের দুই ম্যাচেই আমরা ভালো করতে পারব এবং সেমি-ফাইনালে উঠতে পারব। এটা আমাদের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ এবং বড় অভিজ্ঞতা নেওয়ার উপলক্ষ্য। নতুন বছরটা আমরা ইতিবাচকভাবে শুরু করতে চাই।”

মূল দল নিয়ে বাংলাদেশে আসেনি যুদ্ধ বিধ্বস্ত ফিলিস্তিন। মূল দলের ৮ ফুটবলারের সাথে অনূর্ধ্ব-২৩ দলের ৮। বাকিরা ঘরোয়া ফুটবলার। বিশ্বকাপ বাছাইয়ের ম্যাচের জন্য এখান থেকে তরুণ ফুটবলার খুঁজতে চায় ফিলিস্তিন টিম ম্যানেজম্যান্ট। ২০১৮ সালে কক্সবাজারে সেমি-ফাইনালে বাংলাদেশকে ২-০ গোলে হারিয়েছিল ফিলিস্তিন। বাংলাদেশ কোচ আরো বলেন,

“আমরা প্রতিটি ম্যাচই জিততে চাই। কাগজে-কলমে ফিলিস্তিন শক্তিশালী দল। গতবার ওদের যে দলটি খেলে গিয়েছিল, এটা সেই একই দল নয়। তবে এ দলে টেকনিক্যালি অনেক ভালো খেলোয়াড় আছে। তাদের অনেকে বাহরাইনে অনূর্ধ্ব-২৩ চ্যাম্পিয়নশিপে খেলেছে। নিজেদের মাঠে খেলার সুযোগ কাজে লাগাতে পারলে আমাদের ভালো সুযোগ আছে। কিন্তু তারপরও ফিলিস্তিন ফেভারিট।”

২০২২ বিশ্বকাপের বাছাইয়ে কাতার, ওমান ও আফগানিস্তানের কাছে হারেছিলো বাংলাদেশ।  ভারতের বিপক্ষে সল্ট লেক স্টেডিয়ামে শুরুতে এগিয়ে গিয়েও শেষ পর্যন্ত জয়বঞ্চিত হয়েছিল। তবে জেমি ডের বিশ্বাস এবার ঘুরে দাঁড়াবে বাংলাদেশ। তিনি বলেন,

“ভারত, কাতার এবং ওমান ম্যাচের দ্বিতীয়ার্ধের মতো পারফরম্যান্স যদি এখানে আমরা করতে পারি, তাহলে ফিলিস্তিনের জন্য আমরা পরিস্থিতি কঠিন করে তুলতে পারব। আমরা নিজেদের এবং দেশের জন্য ভালো খেলতে চাই। আমরা জানি ভালো করতে চাওয়ার একটু চাপ আছে এবং সেটার কারণ এই টুর্নামেন্ট।”

সমর্থকরা যেনো গ্যালারিতে আসে অনুপ্রেরণা দিতে। তা নিয়ে আশাবাদী জেমি ডে বলেন,

“আমরা গ্যালারিতে আগামীকাল  (আজ) সমর্থক দেখতে চাই। বছর জুড়ে গ্যালারিতে অনেক দর্শক দেখেছি এবং তাদের সমর্থন আমাদের জন্য চমৎকার একটা বিষয়। এটা খেলোয়াড়দের সাহায্য করে।”