ডেভিড ফিঞ্চারের থ্রিলার নাকি লা-লিগার টুইস্ট

0
31

ডেভিড ফিঞ্চারের থ্রিলার নাকি স্প্যানিশ ট্রিওর থ্রিল, কোনটা বেশী উত্তেজনাকর? সাম্প্রতিক সময়ে এই প্রশ্ন উঠতেই পারে। দুই ঘরানার দুটো বিষয়েও যে এতো মিল আসবে তাই বা ভেবেছে কে? ডেভিড ফিঞ্চারের মুভি তে থাকে থ্রিল, আর স্প্যানিশ ট্রিওর থ্রিলিং কিসে? বেশী কিছু না। একটু ইউরোপিয়ান ফুটবল সম্পর্কে জানাশোনা থাকলেই এতক্ষণে বুঝে যাওয়ার কথা। তিন স্প্যানিশ জায়ান্ট রিয়াল মাদ্রিদ, বার্সেলোনা আর এটলেটিকো মাদ্রিদ এবারের মৌসুমে ঘরোয়া লিগে যেনো সেই থ্রিলিংই উপহার দিচ্ছেন ভক্তদের।

এই মাসেই শেষ হতে যাচ্ছে লা-লিগার এবারের মৌসুম। অথচ, এখন পর্যন্ত লিগের শিরোপা কার শোকেসে যাচ্ছে তাই শিওর হওয়া যাচ্ছে না। রিয়াল, বার্সা কিংবা এটলেটিকো কেউ যেনো শিরোপা জিততেই চাচ্ছে না। অন্তত তাদের খেলা দেখে তারা কি চাচ্ছে তা বোঝাও যেনো মুশকিল। আজ রিয়ালের চান্স থাকছে টেবিলের চূড়ায় উঠার, অথচ ঠিকই ড্র করে মূল্যবান পয়েন্ট খুইয়ে আসবে। একই চিত্রনাট্য দেখা যাচ্ছে বাকি দুই দলের ক্ষেত্রেও। এই যেমন গতরাতেই ২-০ গোলে এগিয়ে থেকেও ৩-৩ ড্র এ ম্যাচ শেষ করে লিওনেল মেসির বার্সেলোনা।

ম্যাচের শুরু থেকেই দারুণ খেলেছেন কোমানের শিষ্যরা। বল কেড়ে নিতেই যেনো ঘাম ছুটেছে লেভান্তের। ঐদিকে মেসি, পেদ্রিরা ঠিকই লেভান্তের রক্ষণে রীতিমতো ত্রাস ছড়িয়েছে। যার ফলও পায় খুব দ্রুতই।

বাঁ পাশ থেকে হঠাৎ করেই জর্দি আলবার ক্রস। লেভান্তের রাইট ব্যাক মিরামোনের গায়ে লেগে যা দিক বদলে চলে যায় বক্সের অন্যপাশে ফাঁকা থাকা মেসির কাছে। বাম পায়ের নিখুঁত ভলিতে বল লেভান্তের জালে। ম্যাচের তখন ২৫ মিনিট আর লা লিগায় মেসির ২৯তম গোল। সব টুর্নামেন্ট মিলিয়ে এই মৌসুমে যা ৩৭তম।

৯ মিনিট পর আবারও গোলের দেখা। দেম্বেলের ক্রস থেকে পেদ্রির পা ছুঁয়ে বল চলে যায় লেভান্তের জালে। ২-০ গোলে এগিয়ে থেকেই প্রথমার্ধ শেষ করে কাতালানরা।

তবে ডেসিং রুমে গিয়ে লেভান্তের কোচ খেলোয়াড়দের কানে কি মন্ত্র জপে দেয় কে জানে। ৫৭ আর ৫৯, দুই মিনিটের ব্যবধানে জোড়া গোলে ম্যাচে সমতায় ফিরে লেভান্তে। প্রথম গোল টা দেন ঞ্জালো মেলেরো। পরের টা দিয়ে সমতায় ফেরান লুইস মোরালেস।

গোল খেয়ে যেনো হুশ ফিরে বার্সেলোনার। প্রথমার্ধে গোল করিয়ে এবার নিজেই গোল করেন দেম্বেলে। ৬৪ মিনিটে বক্সের ভেতর বল পেয়ে ঠান্ডা মাথার ফিনিশিংয়ে স্কোর ৩-২ করেন এই ফরাসি তারকা। তবে ঐ যে থ্রিল, নাটকীয়তা যে রাখতেই হবে স্প্যানিশ তিন জায়ান্টকে। ৭৫ মিনিটে স্ট্রাইকার রজারকে তুলে নেন লেভান্তে কোচ লোপেজ, মাঠে নামে সের্হিও লিওন। ৮৩ মিনিটে বার্সার বিপক্ষে তৃতীয় গোলটা করে ডেভিড ফিঞ্চারের গল্পের নায়কও বনে যায় লিওন।

কোম্যানের শিষ্যদের সুযোগ ছিলো ম্যাচটা জিতে নেওয়ার। কিংবা একদিনের জন্য হলেও লা লিগার শীর্ষে যাওয়ার। কিন্তু সব সুযোগ ছুড়ে ফেলে শিরোপার লড়াই টা যেনো আরও জমিয়ে দিলো কাতালনরা।

৩৫ ম্যাচ শেষে ৭৭ পয়েন্ট নিয়ে সবার উপরে এটলেটিকো মাদ্রিদ। সমান ম্যাচে ৭৫ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের তিনে রিয়াল মাদ্রিদ। আর শীর্ষে উঠার সুযোগ পেয়েও আপাতত ১ ম্যাচ বেশী খেলে লা-লিগায় দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে বার্সেলোনা।

ডেভিড ফিঞ্চারের চলচ্চিত্রের পার ভক্ত হলে দেখতে পারেন এবারের লা-লিগাও। টুইস্ট আর থ্রিলিংয়ে কম যাচ্ছে না স্প্যানিশ ঘরোয়া এই লিগও।