রোনালদোর মত বিশ্বকাপ জয়ে ভূমিকা রাখতে চান নেইমার

ব্রাজিলের হয়ে শততম ম্যাচ খেলতে পেরে রোমাঞ্চিত নেইমার। এবার সেলেসাওদের বিশ্বকাপ উপহার দিতে চান এই ফরোয়ার্ড। কাতার বিশ্বকাপে নিজের স্বপ্নের বাস্তবায়ন করতে চান নেইমার। সে সঙ্গে ক্লাব ফুটবলেও বাড়াতে চান মনোযোগ।

সিঙ্গাপুর ন্যাশনাল স্টেডিয়ামে সেনেগালের বিপক্ষে ম্যাচটি নেইমারের হৃদয়ে অটুট থাকবে সারা জীবন। কারণ প্রতিটি ফুটবলারেরই স্বপ্ন থাকে জাতীয় দলের হয়ে শততম ম্যাচ খেলার মাইলফলক ছোঁয়ার। নেইমারও স্বপ্ন দেখতেন। স্বপ্নটা বাস্তবে রূপ নিয়েছে। কেমন ছিলো সে মুহূর্তটা?

নেইমার বলেন, ‘আমার মনে হচ্ছিলো যেন আমি প্রজাপতির মত উড়ছি। ক্লাব ফুটবল আর জাতীয় দলের মধ্যে পার্থক্যটা অনেক বেশি। জাতীয় দলের সাফল্য হৃদয়কে স্পর্শ করে। সারা জীবন মনে থাকে। ক্লাব ফুটবলও উপভোগ করি আমি। তবে জাতীয় দলের বিষয়টা একেবারেই আলাদা। শততম ম্যাচেই আটকে থাকতে চাইনা আমি। এগিয়ে যেতে চাই আরো বহুদূর।’

২০১০ সালে জাতীয় দলে অভিষেকের পর ২০১১ ও ‘১২ সালে পরপর দুবার দক্ষিণ আমেরিকার সেরা ফুটবলার নির্বাচিত হয়েছেন নেইমার। ক্লাব ফুটবলে সান্তোস, বার্সেলোনার হয়ে পেয়েছেন একের পর এক সাফল্য। কিন্তু একটা আক্ষেপ সবসময়ই তারিয়ে বেড়ায় নেইমারকে। ২০০২ সালে রোনালদো, কাফুদের হাত ধরে সবশেষ বিশ্বকাপ ঘরে তুলেছিলো ব্রাজিল। এরপর আর বিশ্বসেরার ট্রফি ছোয়া হয়নি সেলেসাওদের। পূর্বসূরীদের মতই ব্রাজিলকে শিরোপা উপহার দেয়ার স্বপ্ন দেখেন নেইমারও।

নেইমার বলেন, ‘আমি জানি না কবে ব্রাজিলকে বিশ্বকাপ উপহার দিতে পারবো। কিন্তু স্বপ্ন দেখি, রোনালদোর মত বিশ্বকাপে দলের জয়ে ভূমিকা রাখার। কাতার বিশ্বকাপটা আমাদের জন্য বড় সুযোগ। এখানেই কিছু করে দেখানোর আশা।’

সে সঙ্গে ক্লাব ফুটবলেও এ মৌসুমে পিএসজির হয়ে ভাল খেলতে চান নেইমার।