বিপিএলে ডাকের রাজা ইমরুল, রাণী বিজয়!

সময় নাকি থেমে থাকে না। দেখতে দেখতে বিপিএলের সপ্তম আসর চলে আসছে!

নতুন নামকরণ, বঙ্গবন্ধু প্রিমিয়ার লিগ মাঠে গড়াচ্ছে ১১ ই ডিসেম্বরে। এই আসরে যেমন ব্যাট হাতে কেউ সবার উপরে, কেউ বল হাতে দেখিয়েছেন মুন্সিয়ানা। কেউ বা এক ম্যাচেই আধিপত্য দেখিয়ে হারিয়ে গেছেন অজানায়।

তবে সব ছাপিয়ে কেউ হয়েছেন ব্যাতিক্রম। কেউ রয়েছেন অনন্যদের তালিকায়। শূন্য রানে আউট হওয়াটাকেও কেউ শিল্পের পর্যায়ে নিয়ে গেছে। পাকিস্তানের শহিদ আফ্রিদি ক্রিকেটের যদি “ডাকবাবা” হয় তবে বিপিএলের ডাকের রাজা ইমরুল কায়েস সাগর৷ এই ওপেনারের ঝুলিতেই যে বিপিএলের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশী ডাক!

আসুন জেনে নেই অদ্ভুতুড়ে এই তালিকাতেও সেরা পাঁচজন শূন্য রানের রাজাকে!

১. ইমরুল কায়েস সাগরঃ

Image result for imrul kayes and anamul haqe bijoy

২০১২ থেকে ২০১৯ পর্যন্ত খেলেছেন মোট ৬৮ ম্যাচ। তাতে ৬৭ ইনিংসের ১০ বারেই আউট হয়েছেন শূন্য রানে। বিপিএলের ডাক রাজার দৌড়ে তাই কায়েসের ধারে কাছেও কেউ নাই।

২. এনামুল হক বিজয়ঃ

Image result for imrul kayes and anamul haqe bijoy

ইমরুল কায়েস যদি হোন বিপিএলের ডাকের রাজা। রানীর খেতাব টা তাহলে পাবেন এনামুল হক বিজয়। মোট ৭২ ম্যাচের ৬৭ ইনিংসে ব্যাট হাতে মাঠে নেমে ৮ বারই শুন্য রানে ডেসিংরুমে ফিরে এসেছেন।

৩. রুবেল হোসেনঃ

Image result for rubel hossain

বিপিএলের সেরা বোলারদের তালিকায় রুবেল আছেন তৃতীয় স্থানে। এই পেসার সেরা তিনে আছেন আরো এক জায়গায়। সেরা ডাক রাজার হওয়ার দৌড়ে এই ক্রিকেটার আছেন ৩ নম্বর স্থানে। ৫৬ ম্যাচের ১৪ ইনিংসে ব্যাট হাতে নেমে মোট ৭ বার ডাক মেরেই প্যাভিলিয়নে চলে গিয়েছেন।

৪. মাশরাফি বিন মোর্ত্তাজাঃ

Image result for mashrafe murtuza

২০১২ থেকে ২০১৯ পর্যন্ত মোট ৭৪ ম্যাচ খেলে ৪০ ইনিংসে ব্যাট হাতে নেমেছেন। আর তাতেই ৭ বার শুন্য রানে আউট হয়ে সেরা ডাকের তালিকায় চতুর্থ স্থানে উঠে এসেছেন নড়াইলের এই পেসার।

৫. সাব্বির রহমানঃ

Image result for sabbir rahman

বিপিএলের ইতিহাসের সেরা ব্যাটসম্যানদের তালিকাতে সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক হিসেবে আছেন পঞ্চম স্থানে। সাব্বির সেরা পাঁচে আছেন শুন্য রানে আউট হওয়ার প্রতিযোগিতাতেও। মোট ৭৪ ম্যাচের ৬৬ ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে ৭ বারই ডাক মেরেছেন। বিপিএলের ডাকের রাজা হওয়ার দৌড়েও তাই উঠে এসেছেন সেরা পাঁচে।

নতুন আসরে এবার বরাবরের মতোই শুন্য রানের এই তালিকার দিকেও থাকবে নজর। নতুন কেউ ব্যর্থতার ঝুলি নিয়ে সেরা পাঁচে আসবে কি না, নাকি এরাই থাকেন ডাকের পঞ্চপান্ডব হয়ে।

তার জানতে অপেক্ষা করতে হবে, সব প্রশ্নের উত্ত মিলবে ১১ ই ডিসেম্বর থেকেই!