বাংলাদেশের ফুটবলারদের পারফরম্যান্সে সন্তুষ্ট সাবেকরা

বিশ্বকাপ বাছাইয়ে কাতারের বিপক্ষে হারলেও,পুরো ম্যাচে বাংলাদেশের ফুটবলারদের পারফরম্যান্সে সন্তুষ্ট সাবেকরা। আর কোচ জেমি ডের সাথে ফুটবলারদের বোঝাপড়ার ব্যাপারটা বেশ প্রশংসনীয়। এমনটাই মনে করেন সাবেক দুই ফুটবলার গোলাম সারোয়ার টিপু ও শফিকুল ইসলাম মানিক। এদিকে, কাতার ম্যাচের মতো ভারতের বিপক্ষেও দলগত ভাবে লড়াই করার পরমার্শ দিলেন সাবেকরা।

বিশ্বকাপ বাছাইয়ে শক্তিশালী কাতারের বিপক্ষে ঘরের মাঠে নতুন ইতিহাস গড়ার সুযোগ ছিল বাংলাদেশের সামনে। যদিও এশিয়ান চ্যাম্পিয়নদের বিপক্ষে পুরো ৯০ মিনিট চোখে চোখ রেখে লড়াই করেও শেষ হাসি হাসতে পারেনি লাল-সবুজ জার্সিধারীরা। তবে ফেভারিট হিসেবে কাতার মাঠে নামলেও,দারুন কিছু সম্ভাবনা জাগিয়ে প্রতিপক্ষের বুকে কাঁপন ধরিয়ে দিয়েছিল রবিউল-বিপলু-জামাল ভুইয়ারা। স্বাগতিক ফরোয়ার্ডরা সুযোগ গুলো হাতছাড়া না করলেও,গল্পটা হয়তো লেখা যেতো ভিন্ন আঙ্গিকে।

র‌্যাংকিং আর শক্তিমত্তার বিচারে কাতার এগিয়ে থাকলেও, পুরো ম্যাচে বাংলাদেশের পারফরম্যান্স ছিল চোখে পড়ার মতো। তবে ২ গোলে হারলেও,জেমি ডের পরিকল্পনা অনুযায়ী ফুটবলাররা মাঠে নিজেদের শতভাগ উজাড় করে দেয়। তাইতো এমন নৈপুন্যে সন্তুষ্ট সাবেকরা। তাদের মতে গেলো কয়েক বছরের মধ্যে বাংলাদেশের এ দলটি সবচেয়ে পরিনত।

সাবেক ফুটবলার গোলাম সরওয়ার টিপু বলেন, জেমি ডের সাথে খেলোয়ারদের বোঝাপড়াটা যে ভালো তা দেখলেই বোঝা যায়। কোচ দলটিকে একটা ইউনিট হিসেবে গড়ে তুলেছে।

সাবেক ফুটবলার শফিকুল ইসলাম মানিক বলেন, ফুটবল যে টিম ওয়ার্কের খেলা বাংলাদেশ তা প্রমাণ করতে পেরেছে। আমাদের মিডফিল্ড ভালো খেলছে।

বিশ্বকাপ বাছাইয়ে পরের ম্যাচে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ ভারত। সাবেকদের চোখে এ ম্যাচটি জেমি ডের শিষ্যদের জন্য বেশ গুরুত্বপূর্ণ। যদিও কাতার ম্যাচের পারফরম্যান্স ভারতের বিপক্ষে অনুপ্রেরণা হিসেবে কাজ করবে। তাইতো কৌশলগত দিক বিবেচনায় কাউন্টার অ্যাটাক নির্ভর ফুটবল খেলতে পারলে ইতিবাচক ফল আসবে। এমনটাই প্রত্যাশা সাবেকদের।

বিশ্বকাপ বাছাইয়ে ই গ্রুপে থাকা বাংলাদেশ অন্য দলগুলোর তুলনায় পিছিয়ে থাকলেও, সাম্প্রতিক পারফরম্যান্সে দেশের ফুটবল আন্তর্জাতিক অঙ্গনে অনেক দুর এগিয়েছে বলে মনে করেন সাবেকরা।