বাংলাদেশকে হারিয়ে সিরিজে এগিয়ে গেল আফগানিস্তান

0
57

নিধাহাস ট্রফির ফাইনালের মুহূর্তটাই যেন আবার ফিরিয়ে আনলেন আবার রুবেল। সেবার ১৯ তম ওভারে ২১ রান দিয়েছিলেন। আজকে আফগানিস্তান ম্যাচেও একি কাজ করলেন তিনি।আজকে সিরিজের ২য় ম্যাচে শেষ দুই ওভারে আফগানিস্তানের জিততে প্রয়োজন ছিল ২০ রান। ১৯ তম ওভারে এসে সেই রান একাই দিয়ে দেন তিনি।

টসে জিতে ব্যাট করতে নেমে গত ম্যাচের মত এবারো শুরুটা ভালো হয়নি বাংলাদেশের। দ্বিতীয় ওভারেই লিটনকে হারিয়ে বসে বাংলাদেশ। পরে দেখেশুনে খেলতে শুরু করেন তামিম ও সাব্বির। সাব্বির মারমুখীভাবে খেলতে থাকলেও পরে নবী কে ডাউন দ্য উইকেটে মারতে গিয়ে ক্যাচ আউট হন তিনি।  একই ভাবে আউট হন মুশফিক। ১০ ওভারে তিন উইকেট হারিয়ে ৮১ রান করা বাংলাদেশ। পরের দশ ওভারে আফগান স্পিনারদের সামনে রানই তুলতে পারল না। রশিদ খান একাই ম্যাচ ঘুরে দেন। এক ওভারে পরপর সাকিব,তামিম ও মোসাদ্দেক কে ফেলে বাংলাদেশের ব্যাটিংয়ের মেরুদন্ড ভেংগে দেন তিনি। চার ওভারে ১২ রান দিয়ে চার উইকেট নেন তিনি।পরে আবু হায়দার রনির ২১ রানের ক্যামিও ইনিংসে ১৩৪ রান করে বাংলাদেশ। বাংলাদেশের হয় সর্বোচ্চ ৪৩ রান করেন তামিম ইকবাল।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে বেশ ধীরেসুস্থেই খেলতে থাকে আফগানিস্তান দল। উইকেটের খোঁজে খুজতে থাকা বাংলাদেশ দল শাহজাদকে ২১ রানে ফিরিয়ে দলীয় ৩৮ রানে প্রথম ব্রেকথ্রু পায়। ৫৭ রানে উসমান গনি ও ৭৯ রানে স্ট্যানিকজাইকে ফিরিয়ে এক পর্যায়ে জয়ের আশা দেখাতে থাকে বাংলাদেশ। পরে আফগান ব্যাটিংয়ের লাগাম টেনে ধরে রেখে লো স্কোরিং ম্যাচ ১৯ ওভার পর্যন্ত নিয়ে যায় তারা। কিন্তু ১৯ তম ওভারে ২০ রান নিয়ে একাই ম্যাচ শেষ করে আসেন অভিজ্ঞ আফগান খেলোয়াড় মোহাম্মাদ নবী। দলের হয়ে সর্বোচ্চ ৪৯ রান করেন সামিউল্লাহ শেনওয়ারি।

এই জয় নিয়ে তিন ম্যাচ সিরিজে ২-০ তে এগিয়ে গেল আফগানরা।

স্কোরঃ

বাংলাদেশঃ ১৩৪/৮ ২০ওভার (তামিম ৪৩,রনি ২১*,মুশফিক ২২,রশিদ ৪/১২,নবী, ১৯/২)

আফগানিস্তানঃ ১৩৫/৪ ১৮.৫ওভার(শেনওয়ারি ৪৯*,নবী ৩১*,শাহজাদ২৪,মোসাদ্দেক ২/২১,রনি ১৪/১,রুবেল ৩৮/১)
ফলাফলঃ আফগানিস্তান ৬ উইকেটে জয়ী।
ম্যান অফ দ্য ম্যাচঃ রশিদ খান।

 

লিখেছেন

আনোয়ার হোসাইন সোহাগ