প্রিমিয়ার লিগ বন্ধ হওয়ার শঙ্কা

0
8

করোনা ভাইরাসের কারণে প্রিমিয়ার লিগে তৃতীয় বারের মত ম্যাচ স্থগিত করতে বাধ্য হয়েছে শীর্ষ কর্মকর্তারা। করোনা ভাইরাসের সংক্রমনের কারনে বুধবার স্থগিত করা হয়েছে টটেনহ্যাম হটস্পার্স বনাম ফুলহ্যামের মধ্যকার ম্যাচটি। অবশ্য ‘সার্কিট ব্রেকার’ সত্বেও নিজেদের প্রটোকলের প্রতি পুর্ণ আস্থা রেখেছে লিগ কর্তারা।

স্থানীয় সময় সন্ধ্যা ৬টায় অনুষ্ঠিত হবার কথা ছিল ফুলহ্যামের বিপক্ষে টটেনহ্যমের হোম ম্যাচটি। কিন্তু সফরকারী দলের একাধিক সদস্যের দেহে করোনার সংক্রমন দেখা দেয়ায় ম্যাচ শুরুর চার ঘন্টা আগেই স্থগিত করা হয়।

এই নিয়ে শীর্ষ লিগে তৃতীয় ম্যাচটি স্থগিত হল করোনার প্রাদুর্ভাবের কারণে। এর আগে মাসের শুরুতে এ্যাস্টন ভিলা বনাম নিউক্যাসেল ম্যাচ স্থগিত করা হয়েছিল। গত সোমবার স্থগিত হয় এভারটন বনাম ম্যানচেস্টার সিটির ম্যাচ।

গত মঙ্গলবার প্রিমিয়ার লিগ কর্তৃপক্ষ সর্বোচ্চ সংখ্যক কোভিড-১৯ কেস শনাক্ত হওয়ার কথা জানিয়েছিল। সাপ্তাহিক পরীক্ষার অংশ হিসেবে গতকাল রেকর্ড ১৮ জন খেলোয়াড় ও কোচিং স্টাফ পজিটিভি হয়েছেন। এমনিতেই বিলম্বে শুরু হয়েছে এবারের লিগ। তাই নতুন কর এমন বিপত্তিতে চাপে পড়তে পারে লিগটি।

এক বিবৃতিতে লিগের পক্ষ থেকে মঙ্গলবার বলা হয়েছিল, ২১ ডিসেম্বর থেকে ২৭ ডিসেম্বর পর্যন্ত ১৪৭৯ জন খেলোয়াড় ও ক্লাব স্টাফের কোভিড-১৯ পরীক্ষায় ১৮জনের দেহে ভাইরাসের অস্তিত্ব ধরা পড়েছে। আগামী ১০ দিনের জন্য তাদের সেল্ফ আইসোলেশনে পাঠানো হয়েছে।’

এর আগে গত ৯-১৫ নভেম্বরের মধ্যে সর্বোচ্চ ১৬জন পজিটিভ হয়েছিলেন।

শেফিল্ড ইউনাইটেড জানিয়েছে এই ১৮ জনের মধ্যে তাদের ক্লাবেরই রয়েছে সর্বোচ্চ সংখ্যক সংক্রমন। সংখ্যাটি অবশ্য তারা নিশ্চিত করে জানায়নি। যদিও এরপরেও বার্নলির বিপক্ষে তাদের র্ব নির্ধারিত ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সাউদাম্পটনেরও বেশ কয়েকজন করোনায় আক্রান্ত হওয়ায় তাদেরকে নিজ বাড়িতে সেল্ফ আইসোলেশনে পাঠানো হয়েছে। গোলশুন্য ড্রয়ের ম্যাচটিতে কোচ রাল্ফ হ্যাাসেনহাটলও আইসোলেশনে থাকয় ডাগআউটে ছিলেন না।

সিটির অনুশীলন মাঠ অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষনা করা হয়েছে। রোববার প্রিমিয়ার লিগের এ্যাওয়ে ম্যাচে চেলসি ও আগামী ৬ জানুয়ারি লিগ কাপের সেমিাইনালে সিটিজেনদের ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের বিপক্ষে খেলার কথা রয়েছে।