পর্তুগালের জার্সিতে গোল মেশিন হয়ে উঠলেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো

লিসবনে বড় জয় পেলো পর্তুগাল। লুক্সেমবার্গকে হারিয়ে ৩-০ গোলে হারিয়ে ইউরো বাছাইয়ে জয়ের ধারা ধরে রাখলো শিরোপাধারীরা।

আগের ম্যাচে চার গোল করা ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো জালের দেখা পেলেন আবারও। পর্তুগালও পেল প্রত্যাশিত জয়। ক্যারিয়ারের ৭০০ গোল থেকে এক গোল দূরে সিআর সেভেন।

লিসবনে শুক্রবার রাতে ‘বি’ গ্রুপের ম্যাচটি ৩-০ গোলে জিতেছে পর্তুগাল। বের্নার্দো সিলভার গোলে ম্যাচের শুরুর দিকে এগিয়ে গিয়েছিল তারা। মাঝে ব্যবধান বাড়ান রোনালদো। শেষ দিকে দলের তৃতীয় গোলটি করেন গনসালো গেদেস।

ফিফা র‌্যাঙ্কিংয়ে ৯৩তম স্থানে থাকা দলটির বিপক্ষে গোলের জন্য বেশিক্ষণ অপেক্ষা করতে হয়নি পর্তুগালকে। ষোড়শ মিনিটে বের্নার্দো সিলভার গোলে এগিয়ে যায় তারা।

গোলের দেখা অবশ্য তার আগের মিনিটেই পেতে পারতো দলটি। সিলভার ডি-বক্সে বাড়ানো বল প্রথম ছোঁয়ায় নিয়ন্ত্রণে নিয়ে বাঁ পায়ে জোরালো শট নেন জোয়াও ফেলিক্স। বল দূরের পোস্ট ঘেঁষে বাইরে চলে যায়।

পরের আক্রমণেই এগিয়ে যায় ইউরো চ্যাম্পিয়নরা। ডান দিক থেকে একজনকে কাটিয়ে ডি-বক্সে ঢুকে নেলসন সেমেদোর শট গোলরক্ষকের গায়ে লেগে অরক্ষিত সিলভার পায়ে যায়। অনায়াসে প্লেসিং শটে বাকিটুকু সারেন ম্যানচেস্টার সিটি মিডফিল্ডার।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে ব্যবধান দ্বিগুণ করার সুযোগ পেয়েছিলেন রোনালদো। তবে গোলমুখ থেকে তার দুর্বল বাইসাইকেল কিক অনায়াসে ঠেকান গোলরক্ষক।

মাঝে আরও দুটি হাফ-চান্স কাজে লাগাতে ব্যর্থ হওয়া রোনালদো ৬৫তম মিনিটে একক নৈপুণ্যে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন। প্রতিপক্ষের সামান্য ভুলে বল পেয়ে বাঁ দিক দিয়ে ডি-বক্সে ঢুকে দারুণ এক চিপ শটে আগুয়ান গোলরক্ষকের উপর দিয়ে ঠিকানা খুঁজে নেন ইউভেন্তুস তারকা।

এই নিয়ে জাতীয় দলের হয়ে শেষ তিন ম্যাচে ৬ গোল করলেন রোনালদো। আন্তর্জাতিক ফুটবলে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ গোলদাতার মোট গোল হলো ৯৪টি।

৮৯তম মিনিটে জটলার মধ্যে বল পেয়ে নিচু শটে জয় নিশ্চিত করেন গেদেস। তার নিচু শট প্রতিপক্ষের খেলোয়াড়দের পায়ে লেগে ভিতরে ঢোকে।

প্রথম দুই ম্যাচে ড্র করা পর্তুগাল টানা তৃতীয় জয়ে পাঁচ ম্যাচে ১১ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে আছে।