দেশের হয়ে প্রথম শতরান করেছিলেন যারা

বাংলাদেশের বিরুদ্ধে দেশের হয়ে টেস্টে প্রথম শতরান করার কৃতিত্ব অর্জন করলেন আফগানিস্তানের রহমত শাহ। কনিষ্ঠতম ক্যাপ্টেন রশিদ খানের নেতৃতে খেলতে নেমে প্রথম দিনে ভালই শুরু করে আফগানিস্তান। যার মূল কাণ্ডারি রহমত শাহ। নিজ দলের হয়ে টেস্টে প্রথম সেঞ্চুরি করেছিলেন কে? জানেন? দেখে নেওয়া যাক দেশের হয়ে প্রথম শতরান করেছিলেন কারা।

চার্লস ব্যানারম্যান- ক্রিকেট ইতিহাসের প্রথম টেস্টেই সেঞ্চুরি। অস্ট্রেলিয়া ও ইংল্যান্ডের মধ্যে হওয়া মেলবোর্ন টেস্টে ১৮৭৭ সালে প্রথম সেঞ্চুরিটি করেছিলেন চার্লস ব্যানারম্যান। টস জিতে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে অস্ট্রেলিয়ার ব্যানারম্যান সেঞ্চুরি করেন। ১৬৫ রানের ইনিংস দলকে সুবিধাজনক জায়গায় নিয়ে যায়। ম্যাচ ও জেতে অস্ট্রেলিয়াই।

উইলিয়াম জি গ্রেস- ১৮৮০ সালে ইংল্যান্ডের হয়ে প্রথম সেঞ্চুরি করেন গ্রেস। অভিষেক ম্যাচেই শতরান পান তিনি অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে। ১৫২ রানের ইনিংস খেলে দলকেও জেতান। সারা জীবনে ২২টি টেস্টে দু’টি সেঞ্চুরি করেন তিনি।

জিমি সিনক্লেয়ার- পরের সেঞ্চুরি পায় দক্ষিণ আফ্রিকা। ১৮৮৯ সালে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে সেঞ্চুরি করেন জিমি। কেপ টাউনে সেই ১০৬ রানের ইনিংসযদিও জেতাতে পারেনি দক্ষিণ আফ্রিকাকে। ২১০ রানের বিশাল ব্যবধানে হারতে হয় তাঁদের।

ক্লিফোর্ড রোচ- ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে প্রথম শতরান করেন রোচ। ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে ব্রিজটাউনে দেশের প্রথম শতরানকারী হিসাবে নিজের নাম লেখেন তিনি। প্রথম ইনিংসে ১২২ করার পর দ্বিতীয় ইনিংসে করেন ৭৭। সেই ম্যাচেই ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে দ্বিতীয় সেঞ্চুরি করেন জর্জ হেডলি। কিন্তু সেই সেঞ্চুরি আসে দ্বিতীয় ইনিংসে। ম্যাচ ড্র হয়ে যায়।

স্টিউই ডেম্পস্টার- কিয়ুইদের হয়ে প্রথম শতরান করেন ডেম্পস্টার ১৯৩০ সালে। ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে ১৩৬ রানের ইনিংস খেলেন এই ওপেনার। তাঁর ওপেনার সঙ্গী জ্যাকি মিলস একই ম্যাচে সেঞ্চুরি পান। কিন্তু ডেম্পস্টার আগে শতরান পূরণ করায় ইতিহাসে নাম লেখা হয় তাঁরই।

লালা অমরনাথ- ভারতের হয়ে প্রথম শতরান করেন লালা অমরনাথ। ১৯৩৩ সালে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে মুম্বইতে অভিষেক ম্যাচেই সেঞ্চুরি করেন তিনি। দ্বিতীয় ইনিংসে ১১৮ রানের ইনিংস খেলেন তিনি। যদিও ম্যাচ যেতে ইংল্যান্ড।

নজর মহম্মদ- সারা জীবনে খেলেছেন মাত্র ৫টি টেস্ট। কিন্তু দেশের হয়ে প্রথম শতরানের তালিকায় নাম লিখিয়ে নেন তার মধ্যেই। ১৯৫২ সালে ভারতের বিরুদ্ধে লখনউয়ে ১২৪ রানে অপরাজিত থাকেন তিনি। ভারতকে এক ইনিংস ও ৪৩ রানে হারায় পাকিস্তান।

সিদাথ ওয়েত্তিমুনি- পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ওপেন করে ১৫৭ রানের ইনিংস খেলেন শ্রীলঙ্কার সিদাথ। ১৯৮২ সালে ফয়জলাবাদে সিরিজের দ্বিতীয় টেস্টে এই কীর্তি গড়েন তিনি। তাঁর দ্বিতীয় শতরান আসে দু’বছর পর ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে লর্ডসে।

ডেভ হাউটন- জিম্বাবোয়ের হয়ে প্রথম শতরান করেন ডেভ। অধিনায়ক হিসেবে দলকে সামনে থেকে নেতৃত্ব দেন তিনি। সঙ্গী হন দুই ফ্লাওয়ার ভাই। ভারতের বিরুদ্ধে ৪৫৬ রানের পাহাড় তৈরি করেন তাঁরা। ১৯৯২ সালে হারারেতে ১২১ রান করে দেশের হয়ে এই কীর্তি গড়েন তিনি। ম্যাচ অবশ্য ড্র হয়।

আমিনুল ইসলাম- বাংলাদেশের হয়ে অভিষেক ম্যাচেই শতরান করেন আমিনুল। ২০০০ সালে ভারতের বিরুদ্ধে ঢাকাতে ১৪৫ রানের ইনিংস খেলেন তিনি। যদিও দলের হার বাঁচাতে পারেননি তিনি। নয় উইকেটে জিতে বাংলাদেশকে উড়িয়ে দেয় সৌরভের ভারত।

কেভিন ও’ব্রায়ান- ২০১৮ সালে প্রথম বারের জন্য টেস্ট খেলার ছাড়পত্র পায় আয়ারল্যান্ড। টেস্ট অভিষেকেই ১১৮ রানের ঝকঝকে ইনিংস খেলেন কেভিন। পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ঘরের মাঠে হার বাঁচাতে না পারলেও তাঁর শতরান কিন্তু লড়াইয়ে রাখে আইরিশদের।