ট্রেবল কিংবা হেক্সা, জোড়া অর্জনে ভাসছে বায়ার্ন মিউনিখ

0
13

পর্তুগালের এস্তাদিও দা লুজে চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনালে মুখোমুখি দুই শিরোপা প্রত্যাশী পিএসজি এবং বায়ার্ন মিউনিখ। এই আসরে বায়ার্ন ৫ বার শিরোপার দেখা পেলেও নিজেদের ক্লাব ইতিহাসে প্রথমবারের মতোন ফাইনালে উঠেছে ফরাসি ক্লাব প্যারিস সেইন্ট জার্মেইন।

ম্যাচের শুরু থেকেই আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণে ম্যাচ গড়াতে থাকে। বায়ার্নের নয়্যার ও পিএসজির নাভাস, দুই দলের গোলরক্ষকও নিজেদের মুন্সিয়ানা দেখিয়েছে বেশ। ১৭তম  মিনিটেই নেইমারের জোড়ালো আক্রমণ রুখে দেন ম্যানুয়েল নয়্যার। ফিরতি প্রচেষ্টাও রুখে দেন এই জার্মান কিংবদন্তি।

এরকিছু পরেই লেওয়ানডোস্কির শট নাভাসকে ফাঁকি দিত্ব পারলেও বারে লেগে বল বাইরে চলে যায়। ২৩তম মিনিটে পিএসজির ডি মারিয়া ডি বক্সের ভিতর থেকে বল পোস্টের উপর দিয়ে বাইরে মারে।

এরপর সময় যতো বাড়তে থাকে ম্যাচে লড়াইও জমতে থাকে। ৩১তম মিনিটে আবারও লেওয়ানডোস্কির আক্রমণ। এবার তার হেড রুখে দেন কেইলর নাভাস। তবে ম্যাচে সবচেয়ে সহজ সুযোগ নষ্ট করেন কিলিয়ান এমবাপ্পে। প্রথমার্ধের একদম শেষ মুহুর্তে সোজাসুজি দূর্বল এক শটে নয়্যারের হাতে বল তুলে দেন৷ ফলে গোলশূন্য ড্র নিয়েই মাঠ ছাড়তে হয় দুইদলের। প্রথমার্ধের তূলনামূলক ভাবে পিএসজি ভালো খেলেছে। ৬২ শতাংশ বলই নিজেদের দখলে রেখেছিলো নেইমাররা।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে আবারও ম্যাচে আক্রমণ পাল্টা আক্রমণ শুরু হয়ে যায় দুই দলের। তবে ম্যাচে সবচেয়ে কাঙ্ক্ষিত মুহূর্ত এনে দেন কোমান। ৫৯তম মিনিটে তার প্রচেষ্টা আর রুখতে পারেন নি কেইলর নাভাস। ফলে ম্যাচে প্রথমবারের মতো এগিয়ে যায় বায়ার্ন মিউনিখ।

শেষপর্যন্ত ঐ ১ গোলেই নিজেদের ক্লাব ইতিহাসে ৬ষ্ঠ বারের চ্যাম্পিয়নস লিগের শিরোপা সাথে বার্সেলোনার পর দ্বিতীয় ক্লাব হিসেবে দুইবার ট্রেবল জয় করলো জার্মান জায়ান্ট বায়ার্ন মিউনিখ।