টিকেট মূল্য ফেরত না পেয়ে ফিরে আসলেন বাফুফে ভবন থেকে

৩ মে শুক্রবার অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল বঙ্গমাতা গোল্ডকাপের ফাইনালের। কিন্ত খারাপ আবহাওয়ার কারণে ম্যাচটি বাতিল করে দেওয়া হয় শেষ মুহূর্তে। ফাইনালে অংশগ্রহণ করা বাংলাদেশ ও লাওসকে করা হয় যৌথ চ্যাম্পিয়ন।

অনেকে বাংলাদেশকে সমর্থন দিতে এসেছিলেন বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে। কিন্তু খেলা বাতিল হওয়ায় হতাশ হয়ে ফিরে যেতে হয়। বাফুফে থেকে জানানো হয় যে, স্টেডিয়ামে আসা দর্শকরা চাইলে টিকেট ফেরত দিয়ে তাদের টিকেট মূল্য নিয়ে যেতে পারেন।

কিন্তু বাফুফে ভবনে গিয়ে দেখা গেলো উলটো চিত্র। বাফুফের তথ্য অনুযায়ী শুধুমাত্রা বাফুফের কাছ থেকে যারা টিকেট নিয়েছেন তাদেরকেই টিকেট মূল্য ফেরত দেওয়া হবে। অর্থাৎ, যারা ব্ল্যাকে কিংবা ক্লাবের মাধ্যমে যাওয়া টিকেট নিয়েছেন তারা পাচ্ছেন না। এদিকে বাফুফের অসিফিয়াল কোনো বুথ না থাকায় দর্শকদের স্টেডিয়ামের বাইরে বাফুফের পোশাক গায়ে গলায় কার্ড ঝুলানো এমন ব্যাক্তির থেকে টিকিট সংগ্রহ করেও মূল্য ফেরত পাননি।

টিকেট নিয়ে গিয়েও মাহমুদুল হাসান নামের একজন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অভিযোগ জানিয়ে নিজের হতাশার কথা প্রকাশ করেন-

“বাফুফের ভবনে গিয়ে আজকে নতুন কিছু জানতে পারলাম, যা আপনাদেরও জানানো প্রয়োজন মনে করছি।

যখন সংবাদ সম্মেলনে ও পত্রিকায় টিকিট ফেরত নেওয়ার ব্যাপারে কথা বলে তখন থেকেই ভাবলাম আসলেই কি ফেরত নিবে কিনা। সেই জন্যে গত কাল বিকালে বাফুফে ভবনে গেলাম। টিকিট ফেরতের ব্যপারে বললাম, তারপর ওইখানের সিকিউরিটি বলল রাতে মিটিং করে কাল থেকে ফেরত নিবে। তাই আজকে গেলাম বাফুফে অফিসে, রিসিপশনের লোকটা অনেক্ষণ ধরেই অনেক কিছুই জিজ্ঞেস করলো কিভাবে টিকেট নিলাম, ব্ল্যাকে নিলাম নাকি, ক্লাব হয়ে টিকিট পাইলাম নাকি। তারপর আমি বললাম আমরা ৩ নাম্বার গেইট থেকে বাফুফের পোশাক গায়ে গলায় কার্ড জুলানো এমন ব্যাক্তি থেকে টিকিট সংগ্রহ করেছিলাম।

এগুলো বলার পর আমাকে বলল টিকিট নিয়া একাউন্টস কক্ষে যেতে।

একাউন্টস রুমে যাওয়ার পর একই প্রশ্ন করতে লাগলো। তারপর আমি একই উত্তর জবাব দিলাম, তারপর উনি ৩টা রেজিস্টার বের করে দেখিয়ে বলল আমাদের টিকিট বিক্রি হল মাত্র ৭০ টা তার মধ্যে ভি আই পি টিকিট বিক্রি করলো অল্প কয়েকটা। এরপর আমার টিকিট ২টা নিয়ে নাম্বার মিলিয়ে দেখে বলে আপনি ক্লাব এর টিকিট নিয়েছেন তাই আপনি টাকা টা ফেরত পাবেন না।

Image may contain: indoor

আচ্ছা এমন একটি ফাইনাল খেলায় যদি ৯৫% টিকিট ক্লাবকে দেওয়া হয় তাহলে ৯৫% টিকিটের লোক গুলো ক্লাবের হয়ে আসে???
ক্লাবকে সব টিকিট দিলে দর্শকদের কি টিকিট দিবে??
অহ আচ্ছা দর্শকরা তো ব্ল্যাকে টিকিট নিয়ে থাকে।
কিন্তু আমার কথা হচ্ছে ব্ল্যাকে যারা টিকিট বিক্রি করে তারা টিকিট কই পায়??
নাকি ক্লাবে দেওয়া টিকিটগুলো নিয়া ব্যবসা করছে??

আসলে এই প্রশ্নের উত্তর গুলো বাফুফে কখনো দিবেনা।

আর এই সিস্টেম হলে কখনো বাংলাদেশে ফুটবল এর উন্নতি সম্ভব না। আর আমরা দর্শকরা তো অনেক আবেগী তাই যতই ব্ল্যাকে টিকিট বিক্রি হোক না কেন টিকেট টা ব্ল্যাক থেকেই নিতে হবে। কারন ব্ল্যাকে ছাড়া তো টিকিট নাই। আর ক্লাবগুলোর ব্ল্যাকে বিক্রি করা টিকিট এর মাধ্যমে বেশ ভালোই ব্যবসা চালাচ্ছে।”