টানা দ্বিতীয় ফেডারশন কাপ চ্যাম্পিয়ন বসুন্ধরা কিংস

0
5

ফেডারেশন কাপের ফাইনালে সাইফ স্পোর্টিং ক্লাবকে ১-০ গোলে হারিয়ে টানা দ্বিতীয়বারের মতো চ্যাম্পিয়ন হলো বসুন্ধরা কিংস।

রোববার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে অস্কার ব্রুসনের দল দ্বিতীয়ার্ধে এগিয়ে যায় আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড রাউল অস্কার বেচেরার গোলে। সাইফ স্পোর্টিংয়ের স্বপ্ন ভেঙে নিজেদের শ্রেষ্ঠত্ব ধরে রাখে ক্লাবটি।

একটা পরিচ্ছন্ন ফাইনালে শুরু থেকেই সাইফ স্পোর্টিংকে চাপে রাখে বসুন্ধরা কিংস। প্রেসিং ফুটবলে ম্যাচের মাত্র ৪ মিনিটেই গোলও আদায় করে নিয়েছিলো তারা। কিন্তু সেটা বাতিল হয় অফসাইডের নিয়মে।

ডিফেন্ডার হলেও রাইট উইং ধরে খেপাটে দৌড়ে প্রতিপক্ষের রক্ষণে কাঁপন ধরাতে বেশ পারদর্শী বিশ্বনাথ। সেই প্রচেষ্টাই দেখা গেছে ১৬ মিনিটে। তবে সাইফ গোলরক্ষক পাপ্পুর দৃঢ়তায় সেবার লিড নেয়া হয়নি বসুন্ধরার।

তরুণ স্ট্রাইকার হিসেবে আজকাল বেশ নামডাক ফাহিম আহমেদ ফয়সালের। সেটা কেন তিনি তা দেখিয়ে দেন ২০ মিনিটে। সময় মত জিকো পোস্ট থেকে বেরিয়ে না আসলে প্রথম লিডটা হতে পারতো সাইফ স্পোর্টিংয়ের।

প্রথমার্ধের একেবারে শেষে আবারো ফাহিম ম্যাজিক। এবারও বসুন্ধরার ত্রানকর্তা জিকো। ফলে লিডবঞ্চিত হয়েই বিরতিতে যায় দু’দল।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই ম্যাচের ডেডলক ভাঙে বসুন্ধরা কিংস। ৫২ মিনিটে রবসনের পাস। বাঁ পায়ের ফিনিশিংয়ে দলকে এগিয়ে দেন আর্জেন্টাইন রাউল বেসেরা। এই স্কোরে যৌথভাবে ফেড কাপে টুর্নামেন্ট সেরা স্কোরার হিসেবে নাম লেখান তিনি।

বসুন্ধরার গোলকিপার আনিসুর  রহমান জিকো বারবারই রক্ষা করেছেন দলকে। তার নৈপুণ্যেই ৬৯ এবং ৮৯ মিনিটে ইকেচকু সাইফকে ফেরাতে পারেননি সমতায়।

ঘরোয়া ফুটবলের এটি বসুন্ধরা কিংসের চতুর্থ ট্রফি জয়। অভিষেক আসরেই দলটি জিতেছিল প্রিমিয়ার লিগ ও স্বাধীনতা কাপ। গত মৌসুমে জিতেছিল ফেডারেশন কাপ। ট্রফি ধরে রাখার মাধ্যমে আরেকটি মৌসুম শুরু হলো কিংসের।