জমকালো উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে শুরু হলো দক্ষিণ এশিয়ান গেমস

শুরু হলো দক্ষিণ এশিয়ান গেমসের ১৩তম আসর। নেপালের কাঠমান্ডুর দশরথ স্টেডিয়ামে গেমসের উদ্বোধন করেন দেশটির প্রেসিডেন্ট বিদ্যা দেবী ভাণ্ডারি। জমকালো উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ছিলো নাচ-গান-লেজার শো।

বিলুপ্তপ্রায় হরিণ ব্ল্যাক বাকস সবার সামনে। গেমসের তিন মাস্কটের দুজনের উচ্ছাস দেখার জন্য পূর্ণ গ্যালারি দশরথ রঙ্গশালায়।

নেপালের দশরথ রঙ্গশালায় তারার মেলা। যন্ত্র সঙ্গীতের মধ্য দিয়ে শুরু হয় আয়োজন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের শুরুতেই অংশ নেয়া ৭টি দলের অ্যাথলেটরা নিজ নিজ দেশের জাতীয় পতাকা নিয়ে মাঠ প্রদক্ষিণ করেন।

সবার আগে বাংলাদেশ। ছোট্ট পতাকা হাতে নেতৃত্ব মাহফুজা খাতুন শিলা। দেশের নামের আদ্যাক্ষরে এগিয়ে থাকা লাল-সবুজের চ্যালেঞ্জ শেষ দিন পটদক তালিকায় সম্মানজনক অবস্থান।

দর্শকদের করতালি পেয়েছে ভুটান, সব আসরের সফল দল ভারত। বাদ পড়েনি মালদ্বীপ, পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কা।

নেপালের আগমনে ছোটখাটো ভূমিকম্প সামলাতে হয়েছে দশরথকে। স্বাগতিক দল বলে কথা।

এরপর ১৩তম আসরের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন ঘোষণা করেন নেপালের রাষ্ট্রপতি বিদ্যা দেবী ভাণ্ডারী। যেখানে মনোমুগ্ধকর ডিসপ্লে, চোখ ধাঁধানো লেজার শোতে অনুষ্ঠান পায় ভিন্ন মাত্রা।

নেপালের কিংবদন্তী অ্যাথলেটদের হাতে জ্বলে উঠলো গেমস মশাল। আগামী দশদিন যা প্রজ্জলিত হবে। হবে দক্ষিণ এশিয়ার সাত দেশের ঐক্যের প্রতীক হয়ে।

৩ ঘণ্টা ১৪ মিনিটের জমসকালো অনুষ্ঠানে বাড়তি আকর্ষণ ছিল সাত দেশের ইতিহাস, ঐতিহ্য, সংস্কৃতির বর্ণিল উপস্থাপনা, আতশবাজি।

এবারের আসরে ২৭টি ডিসিপ্লিনে ৭টি দেশের ৩ হাজারের বেশি অ্যাথলেট অংশ নিচ্ছে। যেখানে বাংলাদেশ থেকে ২৫টি ডিসিপ্লিনে প্রায় ৬ শতাধিক অ্যাথলেট অংশ নিচ্ছেন। আসরে ৩২৪টি স্বর্ণসহ মোট নিষ্পত্তি হবে ১১৩৫টি পদকের।