ভিনিসিয়াসের জোড়ায় জিদানের বাজিমাত!

0
41

নিয়মিত অধিনায়ক রামোস নাই, রক্ষণভাগের প্রানভোমরা ভারানে করোনার জন্য মাঠের বাইরে, দলে নেই কার্ভা। হ্যাজার্ড ফিরছে গুঞ্জন চললেও আসলে হয়তো তা শুধুই ফাঁকা বুলি। এতো এতো নাই এর ভিড়ে এস্তাদিও আলফ্রেডো ডি স্টেফানোতে কঠিন বাস্তবতার মুখোমুখিই যেনো জিদানের রিয়াল মাদ্রিদ। প্রতিপক্ষ হিসেবে পুরোনো শত্রু লিভারপুল। ক্লপ বাহিনীর প্রতিশোধ নাকি আরও একবার জিদানের জাদু। এমন নানা সমীকরণে ম্যাচ এগিয়ে যেতে থাকে। প্রথম থেকেই দু দলের আক্রমণ পালটা আক্রমণ অবশ্য জমজমাট ম্যাচেরই আভাস দেয়।

তবে ম্যাচে প্রথম গোলের দেখা পাওয়ার জন্য অপেক্ষা করতে হয় ২৭ মিনিট। টনি ক্রুসের অসাধারণ এক শটে ভিনিসিয়াসের ঠান্ডা মাথার নিখুঁত ফিনিশিং। লিভারপুলের বিপক্ষে ক্যারিয়ারের প্রথম গোলটাও পেয়ে গেলো ব্রাজিলিয়ান এই তরুন। গোল খেয়ে গুছিয়ে উঠতে গিয়ে যেনো আরও দিশেহারা ক্লপ বাহিনী। না হয় অমন ভুল কি কেউ করে?

৩৬ মিনিটে এসেন্সিওর গোলের এসিস্ট যে করেছেন লিভারপুলের রক্ষণভাগের প্রানভোমরা স্বয়ং আর্নল্ড? অপ্রত্যাশিত এই সহায়তা দারুন ভাবে কাজে লাগিয়ে ম্যাচে দ্বিতীয়বারের মতোন স্বাগতিকদের এগিয়ে দেন এসেন্সিও। এই নিয়ে মাদ্রিদের হয়ে শেষ ৪ ম্যাচেই গোল পেলেন এই স্প্যানিশ তারকা। এরপর আর গোল না হলে ২-০ গোলের লিড নিয়েই মাঠ ছাড়ে গ্যালাক্টিকোরা।

বিরতির পর মাঠে নেমে কেমন জানি খাপছাড়া হয়ে খেলতে থাকে রিয়াল মাদ্রিদ। এর খেসারতও দেয় ৫১ মিনিটের সালাহর ফিনিশিংয়ে গোল খেয়ে। যদিও বা এরপর ৬৫ মিনিটে আবারও পাল্টা গোলের দেখা পায় রিয়াল মাদ্রিদ। গোলদাতা এবারও সেই ভিনিসিয়াস। বেনজেমার বাড়ানো বলে মড্রিচের এসিস্ট। আরও একবার ঠান্ডা মাথায় নিখুঁত ফিনিশিং দিয়ে সমালোচনার মোক্ষম জবাব দিলেন এই ব্রাজিলিয়ান তরুন। এরপর আর গোল না হলে শেষপর্যন্ত ৩-১ এর জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ে জিনেদিন জিদানের রিয়াল মাদ্রিদ। ১৫ এপ্রিল ফিরতি লেগে কি হয় এখন তাই দেখার অপেক্ষা!