চ্যাম্পিয়ন্স লিগে মুখোমুখি রিয়াল মাদ্রিদ ও লিভারপুল

0
16

আজ শুরু চ্যাম্পয়িন্স লিগের কোয়ার্টার ফাইনালে  মুখোমুখি হতে যাচ্ছে সাবেক দুই চ্যাম্পিয়ন রিয়াল মাদ্রিদ ও লিভারপুল। আলফ্রেদো দি স্তেফানো স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ সময় রাত একটায় শুরু দুই হ্যাভিয়েটের মধ্যকার লড়াই।

চ্যাম্পিয়ন্স লিগে সবসময়ই হট ফেভারিট রিয়াল মাদ্রিদ। টুর্নামেন্ট সর্বোচ্চ ১৩ বারের চ্যাম্পিয়ন গ্যালাটিকোসরা। অন্যদিকে, ৬ বারের চ্যাম্পিয়ন লিভারপুল।  এবার শেষ ষোলোতে লিভারপুল দুই লেগ মিলে ৪-০ গোলে হারিয়েছে জার্মান ক্লাব লাইপজিগকে। রিয়াল  ৪-১ গোলে হারায় ইতালির আটালান্টাকে।

২০১৮ ফাইনালের পর আবারও রিয়ালের মুখোমুখি লিভারপুল। সেবার জয় পেয়েছিলো গ্যালাক্টিকোসরা।  ৩-১ গোল পরাজয় ছাপিয়ে আজও লিভারপুল সমর্থকদের মনে আক্ষেপের নাম, কিয়েভে মোহাম্মেদ সালার ইনজুরি। যা আজও ভুলতে পারেননি জুর্গেন ক্লপও। তবে প্রতিশোধ নয়, জার্মান মাস্টার মাইন্ডের ভাবনায় শুধুই পরের রাউন্ড।

লিভারপুলের কোচ জুর্গেন ক্লপ বলেন, অবশ্যই সে ম্যাচের কথা মনে আছে। তবে প্রতিশোদ নেয়ার জন্য এখানে আসিনি। আর আমি রেভেঞ্জ নেয়াতেও বিশ্বাসি নই। কিন্তু এবার জিততে পারলে দারুণ হবে।

রিয়াল মাদ্রিদ সব প্রতিযোগিতা মিলে টানা ১১ ম্যাচ অপরাজিত। এর মধ্যে ৯টিতে জয় ও দুটি ড্র। স্প্যানিশ লিগে শীর্ষ দলের সঙ্গে রিয়ালের পয়েন্টের পার্থক্য মাত্র তিন। সবশেষ লিগ ম্যাচে রিয়াল ২-০ তে হারায় এইবারকে। জিনেদিন জিদানের দল সবশেষ হেরেছিল লিগের ২১তম রাউন্ডে লেভান্তের কাছে ২-১ গোলে।

অপরদিকে লিভারপুল যেন নিজেদের হারিয়ে খুঁজছে। গেল মৌসুমে লিগ শিরোপা জেতা দলটির এবার শীর্ষ চারে থাকা নিয়েই দেখা দিয়েছে সংশয়। রবিবার পর্যন্ত লিগে ৩০ ম্যাচ শেষে ৪৯ পয়েন্টে ৬-এ ছিল ইয়ুর্গেন ক্লপের দল। তবে গেল শনিবার আর্সেনালকে ৩-০ গোলে হারিয়ে বেশ চনমনে অলরেডরা। সেই ম্যাচে জোড়া গোল পান দিয়েগো জোতা। অপর গোলটি করেন মোহামেদ সালাহ।

যদিও আলফ্রেদ দি স্তেফানোয় হচ্ছেনা রামোস-সালাহর রাউন্ড টু। ইনজুরিতে আরও আগেই নিশ্চিত হয়েছে রিয়াল অধিনায়কের ছিটকে যাওয়া। তার অভাব পূরণে বিশ্রাম শেষে ফিরছেন রাফায়েল ভারানে। তবে প্রত্যাবর্তনের অপেক্ষা আরও দীর্ঘায়িত হতে পারে ইডেন হ্যাজার্ডের। পেশির ইনজুরি থেকে ফিরে দলের সাথে অনুশীলন করলেও বেলজিয়ান তারকাকে নিয়ে ঝুঁকি নিতে চায়না লস ব্ল্যাঙ্কোস।

রিয়াল মাদ্রিদের কোচ জিনেদিন জিদান বলেন, সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো, হ্যাজার্ড এখন পুরো সুস্থ্য। তার মানে এই নয়, আমরা তাড়াহুড়ো করছি। আর দল হিসেবে আমরা এখন ভালো শেপেও আছি।

রিয়ালের জন্য ইউরোপ সেরার মঞ্চের এ লড়াই এল ক্লাসিকোর প্রস্তুতিও বটে। ১০ এপ্রিল বার্সেলোনার সঙ্গে এবারের লিগে দ্বিতীয়বার মুখোমুখি হবে রিয়াল।